,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি আশ্রয়ান প্রকল্পের গাছ বিক্রির অভিযোগ

জুয়েল শেখ জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের পালগাড়ি আশ্রয়ান প্রকল্পের অর্ধ-শতাধিক সরকারি ইউক্যালিটর গাছ কেটে বিক্রি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই আশ্রয়ান প্রকল্পের সভাপতি মো. দারাজ হোসেন ও সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম

সরকারি বিধি নিষেধ না মেনে এই গাছগুলো বিক্রি করেছে। জানাগেছে, পালগাড়ি আশ্রয়ান প্রকল্পের পুকুরের চারা পাশে লাগানো ৫৪ টি ইউক্যালিটর গাছ ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকায় স্থানীয় গাছ ব্যবসায়ী মফাজ্জল হোসেনের কাছে বিক্রি করা হয়।

এছাড়াও অভিযোগ আছে, আশ্রয়ান প্রকল্পের সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের ইটের রং করা বড় পরিসরের একটি বাড়ি থাকা সত্বেও ওই আশ্রয়ান প্রকল্পের
একটি ঘর তার নামে বরাদ্দ আছে। যে ঘরে সে থাকেনা।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হবু বলেন, আশ্রয়ান প্রকল্পের সরকারি গাছ বিক্রির বিষয়টি জানতে পেরে গাছগুলো উদ্ধার করে
স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের রাখার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন

উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা ইউএনও মোঃ বরমান হোসেন।

আশ্রয়ান প্রকল্পের সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বলেন, গাছগুলো বিক্রি করে আমাদের ভুল হয়েছে। আমরা বিষয়টি বুঝতে পারিনি।

আপনার বড় পরিসরের ইটের বাড়ি থাকার সত্বেও কেন আশ্রয়ান প্রকল্পের ঘর দখল করে আছেন এমন প্রশ্ন করলে, সাংবাদিকের উপরে সে চড়াও ভাবে কথা বলতে থাকে।

উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা ইউএনও মোঃ বরমান হোসেন বলেন, সুবিধা ভোগীদের জন্য যেহেতু পুকুর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

সেহেতু তাদের বিরুদ্ধে আইন বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান। সাংবাদিক আল কারিয়া চৌধুরী সহ অন্নান্য সাংবাদিক বৃন্দরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ