,


শিরোনাম:
«» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা। «» আব্দুল্লাহপুরের তালাবদ্ধ গরুর সিকল কেটে থানায় এনে চাঁদা আদায় ক্ষুব্দ গরুর মালিক  «» ‘পড়ি বঙ্গবন্ধুর বই, সোনার মানুষ হই ‘-শীর্ষক সেরা পাঠকদের পুরষ্কার বিতরণী «» মহানন্দা নদীতে যূবকের রহস্যজনক মৃত্যু হস্তক্ষেপ নেই দায়িত্বশীলদের «» জেলা পুলিশ চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র মাস্টার প্যারেড সম্পন্ন «» দখিনের দুয়ার উম্মোচনে ফরিদগঞ্জে আনন্দ র‍্যালী «» আব্দুল্লাহপুরে এনা পরিবহনের বাস চাপায় মৃত্যু পথযাত্রী নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী সাআ’দ।

যশোরে লাভলী নামে তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তি খুনের ঘটনায় চারজনকে আটক

মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন তুহিনঃ জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ এসময় তাদের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, পাঁচ রাউন্ড গুলি, দুই রাউন্ড গুলির বুলেট, একটি বার্মিজ চাকু, একটি করাত ও ২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। জেলা গোয়েন্দা কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বলেন সাংবাদিকদের এই তথ্য জানানো হয়। আটককৃতরা হলো, সদর উপজেলার দোগাছিয়া গ্রামের জিয়াউর রহমানের ছেলে শাকিল পারভেজ (২১) ঝাউদিয়া গ্রামের শাহাজুল বিশ্বাসের ছেলে মেহেদী হাসান (১৯) শহরতলীর খোলাডাঙ্গা গাবতলা স্কুলের পিছনে জিয়াউর রহমানের স্ত্রী নাজমা ওরফে হিজড়া নাজমা ও একই এলাকার সুজনের স্ত্রী সেলিম ওরফে হিজড়া সেলিনা।পুলিশ জানিয়েছে, তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) সম্প্রদায়ের আধিপত্য বিস্তার ও টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে সেলিনা ও নাজমার সাথে আব্দুল কাদের ওরফে লাভলী হিজড়ার মধ্যে অভ্যান্তরীন বিরোধের সৃষ্টি হয়। সে কারণে নাজমা ও সেলিনাসহ তাদের সহযোগি আরো কয়েকজনকে নিয়ে লাভলীকে খুন করার পরিকল্পনা করে। গত শনিবার লাভলী একটি বাচ্চা নাচানোর উদ্দেশ্যে কায়েমকোলা বাজারের দিকে যান। এসময় তার সহযোগি হিসেবে নাজমা ও সেলিনা ছিলো। নাজমা ও সেলিনার পূর্ব পরিকল্পনায় ঘটনার ওইদিন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে একটি ইজিবাইকে করে রওনা করেন। হালসা গ্রামের মাঠে একটি ব্রিজের উপর পৌছানো মাত্র নাজমা, সেলিনা, শাকিল পারভেজ ও মেহেদী হাসানসহ অজ্ঞাতনামা আরো কয়েবকজনে তাদের পথরোধ করে। এরপর প্রথমে পিস্তল দিয়ে লাভলীকে লক্ষ্য করে পরপর দুইটি গুলি করে। পিস্তলের গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে লাভলীকে হত্যা করা হয়। এরপর স্থানীয়রা উদ্ধার করে লাভলীকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এই ঘটনার পর থেকেই হত্যার কারণ উদঘাটন ও খুনিদের আটকের জন্য সদর উপজেলার হাশিমপুর, দোগাছিয়া, ঝাউদিয়া, নারাঙ্গালী ও ধর্মতলাসহ বিভিন্নস্থানে অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। ওইদিনই গভীর রাতে লাভলীকে হত্যার অভিযোগে ওই চারজনকে আটক করে পুলিশ। এসময় আটক শাকিলের কাছ থেকে লাভলীকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বিদেশি পিস্তল, গুলি ও গুলির বুলেটসহ আটক করা হয়। এছাড়া আটক অন্য তিনজনকে আটকসহ তাদের কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বার্মিজ চাকু, একটি করাত ও দুইটি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়।

এই ঘটনায় লাভলীর বোন সেলিনা খাতুন বাদী হয়ে হত্যা মামলা এবং ডিবি পুলিশের এসআই মফিজুল ইসলাম বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে কোতোয়ালি থানায় পৃথক দুইটি মামলা করা হয়েছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ