,


শিরোনাম:
«» তুরাগে গৃহবধু হত্যার অভিযোগে স্বামীর বন্ধু গ্রেফতার «» ভাড়া বাসায় অবস্থান করে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতী করতো তারা’ «» ঈশ্বরদীতে ২০০ লিটার মদসহ গ্রেফতার ১ «» ঈশ্বরদীতে নবজাতক হত্যার অভিযোগ সাবেক স্বাস্থ্যকর্মীর আকলিমার বিরুদ্ধে «» সাংবাদিকতার দায় একমাত্র জনসাধারণের কাছে:তিতুমীর «» ঈশ্বরদীতে প্রণোদনার সার-বীজ প্রদানে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ প্রকৃত কৃষকদের «» ঈশ্বরদীতে বালু খেকোদের কবলে বিলিন হাজার হেক্টর ফসলি জমি, দিশেহারা কৃষক «» ঠাকুরগাঁওয়ে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালিত র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ সাবেক এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাসভবনে হামলা «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষকলীগের অনুষ্ঠানে সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা মিনহাজ আহত

তুরাগে গার্মেন্টসকর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, স্বামী সোহেল রানা পলাতক।

তুরাগ প্রতিনিধিঃ গত শুক্রবার রাতে রাজধানী তুরাগের নয়ানীচালা এলাকায় আসাদ মঞ্জিল নামক একটি বাড়িতে রিমা তালুকদার (২১) নামে এক গার্মেন্টস কর্মী গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ফাঁসিতে ঝু্লে আত্নহত্যা করেছে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, রিমা তালুকদার)(২১) গত ৬ থেকে ৮ মাস পূর্বে স্বামী সোহেল রানাকে ভালোবেসে বিয়ে করে তুরাগের নয়ানীচালা এলাকার আসাদ মঞ্জিল নামক বাড়িটির ৭ম তলায় একটি ফ্ল্যাটে সাবলেট রুম নিয়ে থাকেন। আত্মহত্যার আগ মুহূর্তে তিনি ডিউফ্যাশন নামে একটি গার্মেন্টসে চাকুরী নিয়ে বসবাস শুরু করে আসছিলো।
তবে বিয়ের পরপরই স্বামী সোহেল রানা কলে কৌশলে বিভিন্ন ভাবে ব্যবসার কথা বলে শাশুড়ি ফিরুজা বেগম থেকে ৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়,,
তবে ৫ লক্ষ্য টাকা নিয়েও শান্ত হয়নি মেয়ের জামাই সোহেল রানা।
খবর নিয়ে জানা গেছে গত বৃহস্পতিবার রাতে রিমা তালুকদার (২১) তার সহপাটিদের কাছে বিভিন্ন অংকে টাকা চেয়ে বলে আমার হাজবেন্ডের কিছু টাকা প্রয়োজন আমাকে কিছু টাকা দিয়ে সহযোগিতা করো। স্বামী সোহেল রানা নিজের স্ত্রীর কাছে টাকা না পেয়ে স্ত্রীর সাথে অসভ্য আচরণ করে রুম থেকে বের হয়ে নিচে এসে মৃত রিমা তালুকদারের বান্ধবীদের ফোন দিয়ে বলে লিমা আর দুনিয়াতে নেই লিমা আত্মহত্যা করেছে তোমরা কে কোথায় আছো যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমার বাসার সামনে আসো। একথা বলে স্বামী সোহেল রানা স্ত্রী রিমাকে ঝুলন্ত অবস্থায় রেখেই পালিয়ে যায়। তবে পালিয়ে গিয়ে স্ত্রী রিমার ফোন থেকে লিমার বান্ধবীদের ফোন দিয়ে বিভিন্ন ধরনের তথ্য সংগ্রহ করতে শুরু করে।
গত শুক্রবার রাত ৮টায় ঐ রুমে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ফ্যানের সাথে ফাঁসিতে ঝুলে আত্নহত্যা করে। এই সময় পাশের রুমের লোকজন পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে তুরাগ থানার এস আই গোবিন্দ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে রুমে ঢুকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে।অতঃপর ময়নাতদন্তের জন্য সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল মর্গে প্ররণ করে। কিন্তুু তার স্বামীকে একাধিক বার ফোন দিলেও রিসিভ না করে কেটে দেয়। নিহত গার্মেন্টস কর্মীর গ্রামের বাড়ি নেত্রকােনা জেলার বারহাট্টা থানার হারুলিয়া গ্রামের সবুজ তালুকদারের মেয়ে। এ ব্যাপারে তুরাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ