,


শিরোনাম:
«» তুরাগে গৃহবধু হত্যার অভিযোগে স্বামীর বন্ধু গ্রেফতার «» ভাড়া বাসায় অবস্থান করে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতী করতো তারা’ «» ঈশ্বরদীতে ২০০ লিটার মদসহ গ্রেফতার ১ «» ঈশ্বরদীতে নবজাতক হত্যার অভিযোগ সাবেক স্বাস্থ্যকর্মীর আকলিমার বিরুদ্ধে «» সাংবাদিকতার দায় একমাত্র জনসাধারণের কাছে:তিতুমীর «» ঈশ্বরদীতে প্রণোদনার সার-বীজ প্রদানে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ প্রকৃত কৃষকদের «» ঈশ্বরদীতে বালু খেকোদের কবলে বিলিন হাজার হেক্টর ফসলি জমি, দিশেহারা কৃষক «» ঠাকুরগাঁওয়ে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালিত র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ সাবেক এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাসভবনে হামলা «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষকলীগের অনুষ্ঠানে সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা মিনহাজ আহত

উত্তরার খালপাড় চাঁদাবাজ মিরাজ দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে নিরব প্রশাসনঃ

স্টাফ রিপোর্টারঃ রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানাধীন খালপাড় পুলিশ বক্সের আশপাশের পুরো এলাকায় সড়ক দখল করে বিভিন্ন প্রকার দোকান বসিয়ে মিরাজের নেতৃত্বে মোঃ মোস্তফা নামক এক চাঁদাবাজ প্রতিদিন অর্ধ লক্ষ টাকা চাঁদাবাজী করে আসছে।

গোপন সংবাদের মাধ্যমে ঘটনার বিষয়ে জানতে পেরে, সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মোঃ মোস্তফা (৩০)ও মিরাজের(৩২) নেতৃত্বে এখানে প্রতিদিন চা দোকান,ফলের দোকান, সব্জির দোকান মাছ দোকান এবং হোটেলসহ শতাধিক দোকান রয়েছে।


আর দোকান প্রতি ২৫০ টাকা থেকে শুরু করে ১০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত দৈনিক চাঁদা আদায় করে আসছে চাঁদাবাজ মিরাজ বাহিনী। অন্য দিকে সড়কের উপর নতুন কেউ দোকান বসাতে গেলেই গুনতে হয় নগদ ৫০০০ টাকা।

মসজিদের সামনে ব্রিজের পূর্ব পাশের প্রায় দুইশত গজ রাস্তা সম্পূর্ণ দখল করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিয়মিত বসছে অবৈধ দোকান সমূহ।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন দোকানী বলেন, “দুপুরে দোকান খুলে বসেছি এখন
সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলেও বিসমিল্লাহ করতে পারিনি, তবে মোস্তফা ভাই খাতা কলমসহ তার সহযোগীকে নিয়ে চাঁদা নিতে এসেছেন ( এ যেন ওদের বাবার রেখে যাওয়া টাকা )”

চাঁদাবাজীর বিষয়ে চাঁদাবাজ মিরাজের কাছে জানতে চাইলে তিনি উচ্ছ কন্ঠে বলে উঠেন, “আমি চাঁদাবাজ মিরাজ আমাকে থানার ওসি থেকে শুরু করে পুলিশ প্রশাসনের কে না চিনে।”

তিনি আরো বলেন, “আমার ক্ষমতা আছে আমি চাঁদাবাজী করি তাতে কার কি সমস্যা। পুলিশ টাকার কাছে নিরব। আমি আজ চাঁদা দেয়া বন্ধ করে দিবো কাল আমি গ্রেফতার। কারণ টাকা আছে মিরাজের ক্ষমতাও আছে, টাকা নেই মিরাজ তখন চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী হিসেবে জেলে গিয়ে পড়বে। আর তখনই এই ক্ষমতাবান মিরাজের জায়গায় অন্য কোন মিরাজ আসবে।”

মিরাজের বিষয়ে জানতে চাইলে খালপাড় এলাকার একাধিক ব্যক্তি বলেন মিরাজ তুরাগ ও উত্তরা এলাকায় ডিবি পুলিশের ফর্মা হিসেবে দীর্ঘদিন কাজ করে আসছে তবে বেশকিছু দিন যাবত ফর্মা মিরাজ গড়ে তুলেছেন একটি চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট।

খবর নিয়ে জানা গেছে খালপাড়েই প্রতিদিন অর্ধ লক্ষ টাকা চাঁদা তোলেন এই চাঁদা বাজ চক্রটি।
সড়ক দখল করে দোকান ছাড়াও রয়েছে অটোরিকশা চাঁদাবাজ চক্র। খবর নিয়ে জানা যায় চক্রটির তত্বাবধানে মোঃ জসিম (৩০) মূল সড়কে থাকা ৮০ থেকে ১০০ টির বেশি ইজি বাইক থেকে। প্রতিদিন ১৩০ টাকা থেকে শরু করে ১৫০ টাকা করে চাঁদাবাজী করে আসছে এই চক্রটি।

এবিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশের সার্জেন্ট দুঃখ প্রকাশ করে বলেন দীর্ঘদিন যাবত চলে আসা দখলদারত্বের কারণে এ এলাকায় প্রতিনিয়তই লেগে থাকে যানজট।ঢাকার আশ-পাশের বিভিন্ন স্থান থেকে ডিয়াবাড়িতে ঘুরতে আসা এবং উত্তরা থেকে মিরপুর রোডে, আশুলিয়া রোডে উঠার জন্য একমাত্র ব্যবহৃত সড়ক এটি।সাধারণ জনগনের চলাচলের মূল সড়ক হিসেবে পরিচিত এই সড়কটি। প্রতিদিন অসংখ্য মানুষ এই সড়কে চলাচলের সময় দীর্ঘ যান-জটের সম্মুখীন হতে হয় আমাদের।


অন্য দিকে রাজধানীর মানুষের কাছে সু-পরিচিত খালপাড়ের বাইতুন নূর জামে মসজিদে মুসুল্লিদের মসজিদে আসা যাওয়ার সময় সমস্যা সৃষ্টি হয়।এছাড়াও পাচঁ ওয়াক্ত নামাজের সময় বাজারে মানুষের চেচামেচিতে নামাজের সময় মুসুল্লিদের নামাজ পড়ার সমস্যা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন নামাজ পড়তে আসা একাধিক মুসল্লি।

ইতঃপূর্বে বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় চাঁদাবাজীর নিউজ প্রকাশিত হলে উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে সব অবৈধ দোকান-পাটসহ ফুটপাত দখল মুক্ত করা হয়। কিন্তু দুই তিন দিন যেতে না যেতেই অদৃশ্য ক্ষমতাবলে আবারও আগের মতই দখল নিয়ন্ত্রণ করে নেয় চাঁদাবাজ চক্রটি।

এ বিষয়ে জানার জন্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৫১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শরিফুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।
অতঃপর উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোঃআকতারুজ্জামান ইলিয়াসকে মুঠোফোনে মূল সড়ক দখলের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, “কয়েকদিন আগেই সব উচ্ছেদ করা হয়েছে।” আবার বসেছে কোন ক্ষমতার বলে? এই প্রশ্ন করলে তিনি প্রশ্ন এড়িয়ে যান।অতঃপর মিরাজের চাঁদাবাজির বিষয়টি এবং মিরাজের বক্তব্য (পুলিশ টাকার কাছে নিরব) এই মন্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান যে,”আমার সামনে পারলে বলতে বইলেন,আপনারা সাংবাদিকেরা সাধারণ মানুষের কথায় ফোন করে আমাদের সময় নষ্ট করেন কেন? এই কথা বলে তিনি ফোন রেখে দেন।
পরবর্তীতে এই বিষয়ে জানার জন্য উত্তরা জোনের উপ পুলিশ কমিশনার মোঃসাইফুল ইসলামের কাছে একাধিকবার কল করলেও ফোন রিসিভ না করায় তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ