,


শিরোনাম:
«» তুরাগে গৃহবধু হত্যার অভিযোগে স্বামীর বন্ধু গ্রেফতার «» ভাড়া বাসায় অবস্থান করে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতী করতো তারা’ «» ঈশ্বরদীতে ২০০ লিটার মদসহ গ্রেফতার ১ «» ঈশ্বরদীতে নবজাতক হত্যার অভিযোগ সাবেক স্বাস্থ্যকর্মীর আকলিমার বিরুদ্ধে «» সাংবাদিকতার দায় একমাত্র জনসাধারণের কাছে:তিতুমীর «» ঈশ্বরদীতে প্রণোদনার সার-বীজ প্রদানে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ প্রকৃত কৃষকদের «» ঈশ্বরদীতে বালু খেকোদের কবলে বিলিন হাজার হেক্টর ফসলি জমি, দিশেহারা কৃষক «» ঠাকুরগাঁওয়ে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালিত র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ সাবেক এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাসভবনে হামলা «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষকলীগের অনুষ্ঠানে সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা মিনহাজ আহত

নওগাঁয় শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে কোরবানীর পশুর হাট

 মো নাহিদ হাসান,নওগাঁ প্রতিনিধিঃআজ সোমবার পবিত্র ঈদুল আযহার বাকি আর একটা দিন আর এরই মধ্যে শেষ হয়ে গেল নিয়ামতপুরের সবচেয়ে বড় পশুর হাট চন্দননগর কলেজ মাঠে । বিভিন্ন জায়গা থেকে বিভিন্ন জাতের পশু এসেছে এই হাটে । বাজারের পশুর দাম তুলনা বেশি। নিয়ামতপুরে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে আসন্ন ঈদুল আজহার পশুর হাট। স্থানীয় প্রশাসনের সার্বিক সহযোগিতায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছে হাটের বেচাকেনা। ক্রেতাদের সমাগম বাড়ায় গরুর দাম কিছুটা বেড়েছে। এতে হতাশাগ্রস্ত খামারিদের মুখে কিছুটা হাসি ফুটেছে।সরেজমিন দেখা যায়, প্রখর রোদ ও বৃষ্টির মধ্যেই হাটে পশু বেচাকেনা হচ্ছে। সরগরম হয়ে উঠেছে স্থানীয় হাটগুলো। গ্রামের ক্রেতা মাহবুল ইসলাম জানান, লকডাউন শিথিল হওয়ায় গত দুই-তিনের হাটের চেয়ে আজ (সোমবার ) চন্দননগর হাটে গরুর বাজার ঊর্ধ্বমুখী। এতে ক্রেতারা খুশি না হলেও খামারি ও বিক্রেতাদের মুখে হাসি ফুটেছে। গত সমবার হাটে যে গরুর দাম ছিল ৫৫-৬০ হাজার সেই গরু আজ ৭০-৭৫ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে। এর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘অনেকেই পশুকে খাওয়ানো ও রাখার বিষয়টি ঝামেলা মনে করে শেষ দিকে গরু কিনছেন। তাই এখন ক্রেতা বেশি।’ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার চন্দননগর ইউনিয়নে গত সমবার হাটে দেখা যায়, দেশি গরুতে বাজার সয়লাব। বিক্রেতারা বড় গরুর দাম হাঁকছেন ৮০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত। এ ছাড়া সর্বনিন্ম ৬০-৬৫ হাজার টাকাও মিলছে গরু। কোরবানি দাতারা বড় গরু বেশি কিনছেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ জেলার গোয়েন্দা শাখার এস,আই মিজানুর রহমান। তিনি বলেন আইজিপি স্যারের নিদ্দেশে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে জানা গিয়েছে যে এইখানে গরুর ছাড় ৭০০ টাকা এবং ছাগলের ছাড় ৪০০ টাকা নেওয়া হচ্ছে। শেষ মহুতে কেউ যদি কোন অনিয়মের চেষ্টা করে তাহলে তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। এবং তিনি বলেন সরকারি নিতি মালা অনুযায়ি গরুর খাজনা ৪০০ টাকা ও ছাগলের খাজনা ২০০ টাকা কেউ যদি এর বেশি আদায় করে তাহলে তাদের বেবস্থা নেওয়া হবে। অবশেষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় খুব সুন্দর ভাবে শেষ হয়ে গেল নিয়ামতপুরের সবচেয়ে বড় কুরবানির পশুর হাট।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ