,


শিরোনাম:
«» প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক পলোগ্রাউন্ডে ২৯টি উন্নয়ন প্রকল্পের শুভ উদ্বোধন করেন-জনসভায় জনসমুদ্রে পরিণত ছিল «» চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় ধর্মঘট উপেক্ষা করে মাদ্রাসা মাঠে মানুষের ঢল «» ঠাকুরগাঁওয়ে পাক হানাদার মুক্ত দিবস উপলক্ষে র‍্যালি শোভা যাত্রা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা।

১টি গ্রামেই ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত ২১ জন;বিপুল হারে দিন দিন করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে

সেলিম মাহবুব,ছাতকঃ
ছাতকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিন-দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখানে দ্রুত করোনার বিস্তৃতি লাভের কারণে শংকিত হয়ে পড়েছেন ছাতকের সাধারণ মানুষ। কিন্তু এক শ্রেণীর মানুষের এ নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই। বরং তারা স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই অবাধে চলাফেরা করছেন। দোকানপাট খুলেও অনেকে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। কঠোর লকডাউনে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পুলিশ, বিজিবি, সেনাবাহিনী মোতায়েন থাকলেও এসব মানুষদের ঘরমুখী করা যাচ্ছেনা। তাদের যেন কোন ভয় নেই। উপজেলার সকল রোডেই যাত্রীবাহী ছোট যানচলাচল করছে। এদিকে হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী ৫ জুলাই পর্যন্ত ছাতকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন ৬৬২ জন। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে এখানে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৪ হাজার ৮৯২ জনের। এর মধ্যে রিপোর্ট পাওয়া গেছে ৪ হাজার ৮২৮ জনের। এখানে কোভিড-১৯ আক্রান্তের হার ১৩.৪ শতাংশ। এন্টিজেন নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২৮০ জনের।

এন্টিজেন নমুনার পজেটিভ সংখ্যা ২ জন। কোভিড-১৯ আক্রান্ত ৬১৯ জন ইতিমধ্যে সুস্থতা লাভ করেছেন। আইসোলেশনে রয়েছেন ৩১ জন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাজীব চক্রবর্তী জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কোভিড-১৯ আক্রান্তদের চিকিৎসায় সেন্ট্রাল অক্সিজেন সুবিধা বেড নেই। সেন্ট্রাল অক্সিজেন মজুদও নেই। অক্সিজেন সিলিন্ডার রয়েছে ২৩ টি। ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের অধীনে কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিনের প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ৭ হাজার ২৬ জন। দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন ৪ হাজার ৮২৫ জন। ভ্যাক্সিনের জন্য রেজিষ্ট্রেশন করেছেন ৮ হাজার ২৫৪ জন। গত ৬ জুলাই ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৬ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তথ্যমতে ছাতকে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে ১২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেলেও এলাকাবাসীর মতে এখানে কোভিডে মৃত্যু এবং আক্রান্তের সংখ্যা আরো বেশি। ছাতক উপজেলার অনেক বাসিন্দা দেশের বিভিন্ন স্থানে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন। গত ২৪ ঘন্টায় ছাতকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩৫ জনের।

এর মধ্যে করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে ২১ জনের। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন নোয়ারাই এলাকার ১ জন, পেপারমিল এলাকার ১০ জন, উপজেলা পরিষদ রোডের ১ জন, মন্ডলীভোগ এলাকার ১ জন, ফকিরটিলা এলাকার ১ জন, কুইয়াদল গ্রামের ১ জন, বাউশা গ্রামের ১ জন, মোগলপাড়া এলাকার ১ জন, রহমতবাগ এলাকার ৩ জন ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১ জন। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাজীব চক্রবর্তী আরো জানান, ছাতকে করোনা সংক্রমণ ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২৪ ঘন্টায় এখানে আক্রান্তের হার ৬০ শতাংশ। সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচলের আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ঈদের হাটবাজারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। ছাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নতুনভাবে ১ হাজার ৭’শ ডোজ ভ্যাক্সিন আনা হয়েছে। ভ্যাক্সিন প্রদান কার্যক্রম সোমবার থেকে শুরু করা হয়েছে। প্রথম দিনে ২৯৮ জন কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিন গ্রহণ করেছেন বলে ও তিনি জানিয়েছেন ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ