,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারা থানার ওসিকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে বদলি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সুনামগঞ্জের দোয়ারা বাজার থানার বিতর্কিত পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) মোহাম্মদ নাজির আলমকে অবশেষে দোয়ারাবাজার থানা হতে বদলি করা হয়েছে। মঙ্গলবার ০১ জুন বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স’র অ্যাডিশনাল আইজি ড. মো. মইনুর রহমান চৌধুরী বিপিএম বার স্বাক্ষরিত (এএন্ডও) আদেশে তাকে বদলি করা হয়। একই সাথে এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর করে ইন্ডষ্ট্রিয়াল পুলিশে সংযুক্ত করা হয়। আদেশের অনুলিপি পুালিশের অন্য দায়িত্বশীল দপ্তর সহ সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারকেও প্রেরণ করা হয়। তিনি ২০২০ সালের ২৩ আগষ্ট ওই থানার ওসি হিসাবে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকেই সীমান্তঘেষা ওই থানা এলাকার মাদক, গবাদী পশু সহ নানা চোরাচালান, মামলা বাণিজ্য, সীমান্তবর্তী নদী হতে অনৈতিক ভাবে খনিজ বালু পাথর উক্তোলকারীদের নিকট হতে সুবিধা নেয়া, তার দায়িত্বকালে থানার এসআই কতৃক বিদেশী মদ উদ্ধারের পর ফের বিক্রি করে দেয়া, বিনা গ্রেফতারী পরোয়ানা ছাড়া মুক্তিযোদ্ধাকে গ্রেফতার করে হয়রানি, থানায় গেলে নিরীহ ভুক্তভোগীদের দের সাথে অসদাচরন, সর্বশেষ নানা সময়ে তার ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম, মামলা, হয়রানী বাণিজ্য নিয়ে বিভিন্ন সময় সংবাদ প্রকাশ করেন সাংবাদিক এনামুল কবির মুন্না। তার দায়িত্বকালে ধর্ষণ , চোরাচালান সংঘর্ষ সহ নানা অপরাধমূলক কর্মকান্ডে ওই থানা এলাকায় আইনশৃংখলার চরম অবনতি দেখা দেয়। এসব অভিযোগ পুলিশ হেডকোয়ার্টারের আমলে নিয়ে তার বিরুদ্ধে গোপন তদন্ত করলে ওসির নানা অপকর্ম তদন্তে বেড়িয়ে আসে। বদলির আশংকা আচ করতে পেরে নিজের লালিত লোকজনকে দিয়ে গত কয়েকদিন পুর্বে ওসি নিজেই তার পক্ষে মানববন্ধন সমাবেশ করে কথিত পেইড সংবাকর্মীদের দিয়ে নিজেকে মানবিক জাহির করতে কয়েকটি অনলাইন ও স্থানীয় কাগজে সংবাদ প্রকাশ করান। তার একটি ভিডিও চিত্র ভাইরাল হয় দিন কয়েক পুর্বে। পেশাগদ দায়িত্ব পালনে র‌্যাব কতৃক আটককৃত ইয়াবা ও মামলার আসামীদের তথ্য সংগ্রহ করতে গেলে ওই সাংবাদিককে থানায় আসতে নিষেধ করেন ওই ওসি। এরপর থানার অন্যান্য অফিসার পুলিশ সদস্য, ও কথিত এক আওয়ামী লীগ নেতাকে লেলিয়ে দেন সাংবাদিককে লাঞ্চিত করেন। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী সাংবাদিক তাৎক্ষণিকভাবে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারকে অবহিত করলেও কোন প্রতিকার না পেয়ে পরবর্তীতে পুলিশের মহা পরিদর্শক (আইজিপি) বরাবর অভিযোগ করেন। মঙ্গলবার রাতে জানতে চাইলে পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) মোহাম্মদ নাজির আলম তার বদলির আদেশ প্রাপ্তির বিষয়টি নিকট স্বীকার করেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ