,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

যৌতুকের তাড়নায় নির্যাতনের শিকার হয়ে স্বামীর সুখের ঘর ছাড়লো আয়েশা

সেলিম মাহবুব, ছাতকঃ দোয়ারাবাজার উপজেলার দোহালিয়া ইউনিয়নের এক গৃহবধুকে যৌতুকের কারণে স্বামীর সুখের ঘর ছাড়তে হয়েছে। বিয়ের ২২ দিনের মধ্যেই এ নেক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে দোয়ারা বাজার উপজেলার দোয়ালিয়া ইউনিয়নে। জানা গেছে, গত ১২ এপ্রিল করালি গ্রামের আহাদ আলীর মেয়ে আয়েশা বেগমের সঙ্গে একই গ্রামের জমসিদ আলীর ছেলে মঈনুল ইসলামের বিয়ে হয়। বিয়ের সময় যৌতুকের দাবি না থাকলেও মেহেদীর রং না শুকাতেই বিয়ের ২২ দিনের মাথায় যৌতুকের তাড়নায় নির্যাতনের শিকার হয়ে স্বামীর সুখের ঘর ছাড়তে হয়েছে আয়েশাকে। ৪ মে রাতে আয়েশার শশুর জমসিদ আলীর চাহিদা অনুযায়ী বাবার বাড়ি থেকে ১ লাখ টাকা যৌতুক দিতে না পারায় শ্বশুর ও তার স্বামী তাকে ব্যাপক মারপিট করে গুরুতর আহত করে। এভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে ঘর থেকে বের করে দেয়া হয় আয়শাকে। সে নিরুপায় হয়ে অসহায় বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেয়। এসব ঘটনায় গত ১৯মে সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতে মঈনুল ইসলাম ও তার পিতা জমসিদ আলীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে আয়েশা বেগম। মামলার খবর পেয়ে জমসিদ আলী তার ছেলে মঈনুলকে লুকিয়ে রেখেছে। এবিষয়ে আয়েশার বৃদ্ধ দাদা উমর আলী জানান, জমসিদ আলী তার পরিবারের লোকজন কে রাস্তা ঘাটে চলাচলে বাঁধা সৃষ্টি করে হুমকি ধামকি দিচ্ছে। জমসিদ আলী জানান, তার ছেলে বাড়িতে নেই, যত টাকা খরচ হবার হউক আমি এই মেয়েকে বাড়ির বউ হিসাবে ঘরে নেবো না বলেন তিনি। অসহায় দিনমজুর পরিবারের মাতৃহীন আয়েশা বেগম জানান, আদালতে মামলা দায়ের করেছেন তিনি। এব্যাপারে তিনি ন্যায়বিচারের প্রত্যাশা করেন। দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ নাজির আলম বলেন, আদালতে দায়েরকৃত মামলাটি এখনো থানায় আসেনি। মামলার কপি পেলেই তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ