,


শিরোনাম:
«» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা। «» আব্দুল্লাহপুরের তালাবদ্ধ গরুর সিকল কেটে থানায় এনে চাঁদা আদায় ক্ষুব্দ গরুর মালিক  «» ‘পড়ি বঙ্গবন্ধুর বই, সোনার মানুষ হই ‘-শীর্ষক সেরা পাঠকদের পুরষ্কার বিতরণী «» মহানন্দা নদীতে যূবকের রহস্যজনক মৃত্যু হস্তক্ষেপ নেই দায়িত্বশীলদের «» জেলা পুলিশ চাঁপাইনবাবগঞ্জ’র মাস্টার প্যারেড সম্পন্ন «» দখিনের দুয়ার উম্মোচনে ফরিদগঞ্জে আনন্দ র‍্যালী «» আব্দুল্লাহপুরে এনা পরিবহনের বাস চাপায় মৃত্যু পথযাত্রী নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী সাআ’দ।

ঈশ্বরদীতে সরকারী আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে স্কুল শিক্ষার্থীদের গোপনে পরীক্ষা কৌশল

ঈশ্বরদী প্রতিনিধিঃ ঈশ্বরদী সান ফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের কোমলমতি শিশুদের আগামী ০১লা জুন থেকে গোপনে ম্যাডামদের বাসায় পরীক্ষা নেওয়ার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। এ উপলক্ষে কোমলমতি শিক্ষার্থী অভিভাবকদের বাসায় বাসায় রুটিন পৌঁছে দিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। পরীক্ষা নেয়া হবে সংশ্লিষ্ট ম্যাডাম দের বাসায়। জানাগেছে, ঈশ্বরদী শেরশাহ রোডে অবস্থিত সানফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুল সরকারী আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এমন ঝুঁকি পুর্ন কাজটি তাঁরা করতে যাচেছ। এবিষয়ে আমাদের অনুসন্ধানী টিমের হাতে এই কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের তৈরি করা পরীক্ষার রুটিনের কাগজ হাতে আসে। সেই রুটিনটি এমন কৌশলে তৈরি করছেন। তাতে নাই কোন এই কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের নাম। শুধু রুটিনে রয়েছে কোন কোন ম্যাডাম এর বাসায় পরীক্ষা হবে তাদের নামের তালিকা সাথে আছে সময় সূচী তারিখ ও ১০ জন ছাত্র ছাত্রী একত্রে পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে। সংশ্লিষ্ট এই সানফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের কোমলমতি শিশুদের অভিভাবকদের হাতে রুটিন পৌঁছায়। সে রুটিনে নাই সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কারো স্বাক্ষর। রুটিনের মধ্যে আছে শুধু ম্যাডামদের নামের তালিকা। যে সমস্ত ম্যাডামদের বাসায় পরীক্ষা নেয়া হবে। তারা হলেন যথাক্রমে লুনা ম্যাডাম,শাহীন ম্যাডাম,ববি ম্যাডাম ও মন্জুয়ারা ম্যাডাম।

এদিকে সরকারি আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে সানফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের অধ্যক্ষ এনামুল হকের এই করোনা কালীন সময়ের এতো গুলো কোমলমতি শিশুদের একত্রে করে পরীক্ষা নেয়ার হীনো সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাতে বেশ কয়েকজন অভিভাবক তার কাছে যান। এসময় এই অধ্যক্ষ বলেন সন্তান আপনাদের মানুষ করার দায়িত্ব আমাদের। তারএমন ভাষ্যে হতভম্ব অভিভাবকবৃন্দ বলে জানা গেছে। এখন সচেতন মহলের প্রশ্ন ঈশ্বরদী সানফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের অধ্যক্ষ এনামুল হকের বুকের পাটা এত বড় কি করে হলো ? সরকার যখন দেশে করোনা কালীন সারাদেশে লক ডাউন অভ্যাহত রেখে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছেন। সে ক্ষেত্রে যদি এমন হঠকারী তার এই সিদ্ধান্তে কোন শিশু করোনায় আক্রান্ত হয় তাহলে কি তিনি নিবেন এর দায়ভার? এদিকে‌ দেশের পশ্চিমাঞ্চল চাঁপাইনবাবগঞ্জ সহ বিভিন্ন সীমান্তবর্তী এলাকা কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছেন। সেখানে ঈশ্বরদী থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে দূরুত্ব বেশিদূর নয়। ঈশ্বরদীতে কোন ঠাসাঠাসি করে ১০ জন কোমলমতি শিশুদের একরুমে পরীক্ষা নেয়া কি সমুচিত হবে ?। হতাশায় ভুগছেন কোমলমতি শিশুদের অভিভাবক মহল। এব্যাপারে সানফ্লাওয়ার কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের অধ্যক্ষ এনামুল হকের সাথে কথা বলার জন্যে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি জরুরি ভিত্তিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন বলে অনেক অভিভাবকই জানান।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ