,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

উত্তরায় সাংবাদিক নামধারী দুর্বৃত্তদের হামলা,ভাংচুর ও লুটপাটঃআহত- ৪ এক নারীসহ গ্রেফতার-৫

এস,এম,মনির হোসেন জীবনঃরাজধানীর উত্তরার আবদুল্লাহপুরে হা-মীম গ্রুপের কর্মীদের বহনকারী স্টাফ বাসে হামলা চালিয়েছে সাংবাদিক নামধারী দুর্বৃত্তরা। এতে হা-মীম গ্রুপের তিন কর্মীসহ চারজন রক্তাক্ত হয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন। আহতদের টঙ্গীর আহসানউল্লাহ মাস্টার জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এঘটনায় স্থানীয় কয়েকশ জনতা ওই দুর্বৃত্তদের ঘিরে পিটুনি দেয় তখন খবর পেয়ে উত্তরা পুর্ব থানা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে এক নারীসহ কথিত ৫জন সাংবাদিককে জনতার হাত থেকে উদ্বার করে এবং পরবর্তীতে তাদেরকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে ইফতারের পূর্বক্ষণে ঢাকা ময়মরসিংহ মহাসড়ক আব্দুল্লাহপুর বেরিবাধ বাসস্ট্যান্ট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। দুর্বৃত্তদের হামলায় আহতরা হলেন- হা-মীম গ্রুপের স্যাম্পল বিভাগের ডেভেলপমেন্ট স্টাফ বিল্লাল হোসেন, দাউদ খান, মো. মিলন এবং বাসচালকের সহকারী মো. নুরুদ্দিন। এঘটনায় গ্রেফতারকৃতরা হচেছ- রাজধানীর উত্তরখানের তালতলা আটিপাড়ার জামা আক্তার ওরফে ঝর্ণা আক্তার, একই থানার পূর্ব চাঁনপাড়ার ফারুক আহমেদ, মাস্টারপাড়ার সাখাওয়াত হোসেন সাগর, দক্ষিণখানের ফরিদ মার্কেট এলাকার ওজিউল্লাহ খোকন ও টঙ্গীর এরশাদনগরের মো. বিপ্লব। পরিচয়পত্রের তথ্য অনুযায়ী ঝর্ণা কথিত দৈনিক এই বাংলার স্টাফ রিপোর্টার, ফারুক সাপ্তাহিক উত্তরা বাণীর সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার, বিপ্লব ঢাকা টিভির ক্যামেরাপারসন, ওজিউল্লাহ ক্রাইম প্যাট্রোল বিডির প্রতিনিধি এবং একই প্রতিষ্ঠানের ইনভেস্টিগেটিভ করেসপন্ডেন্ট সাগর। এ ছাড়া সুমি চৌধুরী ও মো. ইফতেখার নামের তাদের দুই সহযোগী পলাতক রয়েছে। আজ শুক্রবার ধৃত ৫ আসামীকে জিঞ্জাসাবাদের জন্য পুলিশ সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে তাদেরকে আদালতে পাঠিয়েছে। উত্তরা পূর্ব জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) তাপস কুমার দাস আজ শুক্রবার এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ জানিয়েছে,আটককৃতরা বিভিন্ন অনলাইনের কার্ড ব্যবহার করতো এবং সাংবাদিক পরিচয়ে ঘুরে বেড়াতো। তারা উত্তরার আব্দুল্লাহপুরে সাংবাদিক পরিচয়ে হামীম গ্রুপের কর্মী বহনকারী বাস আটকিয়ে পোশাক কারখানার স্টাফদের মারধর, গাড়ীর গ্লাস ভাংচুর, ও চাঁদাবাজির অভিযোগে পাঁচ জনকে আটক করেছে উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশ। পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী , মামলা ও আহতরা জানান, গাজীপুরের টঙ্গীর নিশাদনগর এলাকায় হা-মীম গ্রুপের অঙ্গসহযোগী প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ কালেকশন থেকে কর্মীদের বহনকারী একটি বাস ঢাকায় তেজগাঁওয়ের প্রধান কার্যালয়ে ফিরছিলেন।তাদের বহনকারী বাসটি উত্তরার আবদুল্লাহপুর ব্রিজ পার হওয়ার পর একটি মাইক্রোবাস পেছন থেকে বিকট শব্দে হর্ন দিয়ে ওভারটেক করতে চাইছিল। সেটিকে ওভারটেক করার মতো জায়গা দিতে সামান্য দেরি হয়ে যায় ওই বাসচালকের। এরপর মাইক্রোবাসটি বেপরোয়া গতিতে বাসের সামনে চলে আসে এবং রাস্তার মাঝখানে থেমে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। তখন গাড়ি থেকে নেমে আসা কয়েকজন নিজেদের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে হম্বিতম্বি শুরু করে। তারা বাসের হেলপারকে বেদম মারধর করে। এ সময় বাসে থাকা হা-মীম গ্রুপের কর্মীরা নেমে বাধা দিতে গেলে তাদেরও মারধর করা হয়। হা-মীম গ্রুপের টঙ্গী জোনের হেড অব অ্যাডমিন আবু রাসেল বলেন, বিনা কারণে আমাদের কর্মীদের বেধড়ক পেটানো হয়েছে। এতে বিল্লাল হোসেন নামের একজনের মাথা ফেটে গেছে। আরও কয়েকজন আহত হয়েছেন। তারা কর্মীদের মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ কেড়ে নিয়েছে। এসব দেখে আশপাশের লোকজন এসে তাদের ঘিরে ধরে। হামলাকারীদের মধ্যে সাংবাদিক পরিচয় দেওয়া ঝর্ণা আক্তার ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নিতে তার সঙ্গের লোকজনকে পরামর্শ দেয়। এর মধ্যে পুলিশ ঘটনাস্থলে চলে আসে। আহতদের উদ্ধার করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়। আহত বিল্লাল হোসেন বলেন, প্রথমে হামলাকারীদের একজন এসে ঘুসি দিয়ে বাসের জানালার কাচ ভেঙে ফেলে। আমাদের কর্মীরা বাস থেকে নামতে শুরু করলে তাদেরও মারধর করা হয়। মারধরে আমার মাথা ফেটে যায়। তারা সাংবাদিক পরিচয় দিলে আমরা জানাই, আমাদেরও দু’টি মিডিয়া হাউস আছে। কেন অহেতুক এমন মারমুখী আচরণ করছেন? তারা আমাদের কথা না শুনে মারধর করতে থাকে। কারও কারও মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। এসময় দুর্বৃত্তদের অতর্কিত হামলায় হা-মীম গ্রুপের কর্মী বিল্লালের মাথা ফেটে যায়। ওই সময় মাইক্রোবাসে ৮ জন ছিল। তাদের মধ্যে ঝর্ণা নামের একজন নারী সাংবাদিক হেলপারের শার্টের কলার ধরে বলে- ‘আমি ধরছি এবার তোরা মার। এ সময় কয়েকজন হেলপারকে ধরে মারধর করতে থাকে, একজন মোবাইলে ক্যামেরা করতে থাকে ও আরেকজন ক্যামেরা নিয়ে ভিডিও করতে থাকে।

এ সময় ওই নারীর ভয়ে হেলপারকে তাদের কাছ থেকে ছাড়ানোর সাহসও পায়নি কেউ। এ অবস্থা দেখে উত্তরার আব্দুল্লাহপুর এলাকায় দুশ থেকে আড়াইশ লোক ও পথচারীরা এক নারীসহ ৫জনকে ফিরে ফেলে এবং উত্তেজিত জনতা ধরে তাদেরকে গনধোলায় দেয়। তখন পুলিশ থকর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে তাদেরকে জনতার হাত থেকে উদ্বার করে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে পরিস্থিতি শান্ত হয়। এদিকে আটক হওয়া কথিত সাংবাদিক ঝর্না আক্তার মিতু ওরফে ঝর্ণা বলেন, ওই বাসে থাকা লোকজন তার গলার চেইন ছিড়ে নিয়ে গেছে। তার জামাকাপড় টেনে ছিড়ে ফেলেছে। মামলার বাদী হামীম গ্রুপের কর্মচারী বিল্লাল হোসেন এজাহারে উল্লেখ করেন, নামধারী সাংবাদিকরা তাদেরকে মারধর করে ২১ হাজার টাকা মূল্যের দুটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত জনতা পাঁচ জনকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে। কিন্তু ইফতেখার ও সুমি নামের আরো দুই জন কৌশলে মাইক্রোবাস নিয়ে পালিয়ে যায়। উত্তরা পূর্ব থানার পরিদর্শক (অপারেশন) নূর আলম মাসুম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেখানে দুই-তিনশ লোকের ভিড় দেখতে পায়। মারধরের ঘটনায় আশপাশের লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে হামলাকারীদের ঘিরে ধরেছিল। পুলিশ অভিযুক্ত চার পুরুষ ও এক নারীকে আটক করেছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এদিকে, উত্তরা পূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ, (ওসি) মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, আটকদের এ-সংক্রান্ত মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হবে। সাংবাদিক পরিচয়ে তারা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারে বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। এ বিষয়ে উত্তরা পূর্ব জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) তাপস কুমার দাস বলেন, গ্রেপ্তার হওয়া এক নারীসহ ৫ জন কথিক সাংবাদিকরা উত্তরার আব্দুল্লাহপুরে হা-মীম গ্রুপের বাসের লোকজন ও পাবলিকের সাথে মারামারি করছিল। আবার লাইভ করতেছি, লাইভ করতেছি বলে ক্যামেরা ও মোবাইল ধরে ভয়ভীতি দেখাচ্ছিল। তখন সেখানে ২০০ থেকে ২৫০ লোকজন জড়ো হয়েছিল। উত্তেজিত জনতা তাদেরকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করেছে। তিনি বলেন, সাংবাদিক পরিচয়ে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতার মাধ্যমে জনমনে ভীতি ত্রাস সৃষ্টি করে গাড়ী ভাংচুর করে চাঁদা দাবি ও মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়ার অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে উত্তরা পূর্ব থানায় গতরাতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। যার মামলা নম্বর-২০(৪)২১। ডিএমপি পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, এই মামলার ধৃত ৫ আসামীকে আজ শুক্রবার সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ছাড়া সুমি চৌধুরী ও মো. ইফতেখার নামের তাদের দুই সহযোগী পলাতক রয়েছে। তাদেরকে ধরতে পুলিশী অভিযান অব্যাহত আছে। এদিকে, ডিএমপি পুলিশের উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বলেন, আটকরা সবাই ভুয়া সাংবাদিক। তাদের দৌরাত্ম্যে মানুষ অতিষ্ঠ। অনেকে তাদের মাধ্যমে প্রতারিত হচ্ছেন। এ ধরনের প্রতারকদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালাবে পুলিশ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ