,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

গলাচিপায় শিক্ষক-ছাত্রীর আপত্তিকর কথাবার্তা ফাঁস সমালোচনার ঝড়

গলাচিপা প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলার চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক সোহেল রানার বিরুদ্ধে চরশিবা গ্রামের সামলা(ছদ্মনাম) নামের এক ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর সম্পর্কের অভিযোগ উঠেছে। গত ১০ এপ্রিল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের ঘনিষ্ট ফেসবুক বার্তার কিছু স্ক্রীনশট ও ভয়েস রেকর্ড ফাঁস হয়। ফাঁস হওয়া স্ক্রীনশট ও ভয়েস রেকর্ড ফেসবুকে ভাইরাল হয়। প্রকাশিত স্ক্রীনশটগুলোতে শিক্ষকের আপত্তিকর কথাবার্তা প্রমান মিলে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও সচেতন মহলে নিন্দা ও সমালোচনার ঝড় উঠেছে। অভিযুক্ত শিক্ষক সোহেল রানা চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গনিত শিক্ষক। তার স্ত্রী সন্তান থাকার পরেও ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর সম্পর্কে জড়ানোর অভিযোগ ওঠে। ভাইরাল হওয়া ভয়েস রেকর্ড ও স্ক্রীনশটগুলোতে বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর কথোকথনের প্রমান মেলে। সামাজিক মাধ্যমে পাওয়া স্ক্রিনশর্ট ও ভয়েস রেকর্ড সুত্র ধরে অনুসন্ধানে অভিযোগের বেশ কিছু সত্যতার প্রমান মিলে। ভয়েস রেকর্ডে অভিযুক্ত শিক্ষকে বলতে শোনা যায় , তিনি লাউল্লা ( কলাপাড়া উপজেলার একটি ইউনিয়ন লালুয়া) আছেন। নারী শিক্ষার্থী কথায় জানা যায় সোহেল রানা ট্রলার চরে আটকে আছে। ঐ শিক্ষার্থী তখন তাদের পুরানো কিছু ছবি অভিযুক্ত সোহেল রানার কাছে আছে কিনা জানতে চান। উত্তরে সোহেল রানা ভয়েস বার্তায় জানান , তার কাছে ছবিগুলো আছে। এ সময় কথার সাথে ট্রলারের শব্দ পাওয়া গেছে। সেদিনের তারিখ ,দিন, সময় ও চরে ট্রলার আটকে যাওয়া পর্যালোচনা করে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। ঐ দিন চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষকদের নিয়ে কুয়াকাটাতে একটি বনভোজনের আয়োজন হয়। সেখানে সোহেল রানাও ছিলেন। সেখান থেকে ট্রলার যোগে ফেরার সময় শিক্ষকদের ট্রলারটি ডুবো চরে আটকে যায়। সেদিন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের ফেসবুক পোষ্টের সুত্র ধরে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এছাড়াও একাধিক সুত্র ফাঁস হওয়া ভয়েস রেকর্ড শুনে শিক্ষক সোহেল রানার ভরেস বলে নিশ্চিত করেছেন। বিদ্যালয়টির সাবেক শিক্ষার্থীরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নিজের নাম ও ব্যাচ উল্লেখ করে ফেসবুকে পোষ্ট দিয়েছেন। তাদের অনেকেই #StandwithCkhighschool হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে নিন্দা জানিয়েছেন। গত কয়েক বছরে চর কাজল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্রীদের সাথে ঘটে যাওয়া অনৈতিক সকল ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার জোর দাবি জানান সাবেক শিক্ষার্থীরা। ঘটনাসূত্রে জানা যায়, বিগত কয়েক বছর ধরে ভিন্নভিন্ন সময়ে উক্ত বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষকের যৌন হয়রানি ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে বহু নারী শিক্ষার্থী। লোকলজ্জা, সামাজিক অবস্থান ও স্থানীয় ক্ষমতাসীন লোকদের ভয়ে মুখ খোলেনি ভুক্তভোগী পরিবারগুলো। অনেক পরিবার মুখ খুললেও পায়নি সঠিক বিচার। সাবেক শিক্ষার্থীদের দাবী বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারনে চর কাজল হাইস্কুলে একই ধরনের ঘটনার পূর্ণবৃত্তি ঘটছে। এ বিষয়ে গণমাধ্যম কে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃজামাল খান মুঠোফোনে জানান, ঘটনা আমি শুনেছি এবং এর আগেও একই ঘটনা স্কুলে ঘটেছে। স্কুলের কলঙ্ক মানে আমার কলঙ্ক। আমি চাই স্কুল টি কলঙ্ক মুক্ত। তাই স্কুলের শিক্ষক যদি এ কাজ করে থাকে তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। আমি এজন্য ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জানাই। এ বিষয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক সোহেল রানার বক্তব্য জানতে মুঠোফোনে একাধিক বার চেষ্টা করে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। মেয়ের বাবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। চর কাজলের সচেতন মহলের কয়েকজন আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, ইতিমধ্যে গুঞ্জন উঠেছে অভিযুক্ততে বাঁচাতে একটি মহল উঠেপড়ে লেগেছে। ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছে এলাকাবাসী।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ