,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

রাজধানীতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বন্ধু নিহতঃঅপর শিক্ষার্থী বন্ধু আহত

এস,এম,মনির হোসেন জীবনঃ রাজধানীর মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় এক বন্ধু নিহত এবং অপর বন্ধু গুরুতর আহত হয়েছেন। নিহতের নাম মাহমুদুল হাসান রোহিত (১৮) ও আহত ওই যুবকের নাম শেখ মারজান (১৯)। নিহত রোহিত গুলিস্তানে একটি গেঞ্জির দোকানের চাকরি করতেন। আহত শেখ মারজান ফার্মগেটের পলিটেকনিকে আর্কিটেকচারের প্রথম বর্ষের ছাত্র।
আজ শুক্রবার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রোহিতকে সাড়ে ৪ দিকে মৃত ঘোষণা করেন।
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (ওসি) মো. বাচ্চু মিয়া আজ শুক্রবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
পথচারী মাসুদ রানা ও নিহতের পরিবারের উদ্বিতি দিয়ে পুলিশের এ কর্মকর্তা জানান, মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার দিয়ে যাওয়ার সময় পোস্তগোলার তিন রাস্তার মোড়ে মোটরসাইকেলসহ রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখেন এক যুবককে। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর আগেই আহত আরেকজনকে অন্য পথচারীরা হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কীভাবে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনাটি ঘটেছে সে বিষয়ে কিছু জানাতে পারেননি পথচারী মাসুদ রানা।
তবে, কোনো যানবাহন তাদের মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দিয়েছে কিনা অথবা নিজেরাই মোটরসাইকেল নিয়ে পরে গিয়েছে কিনা সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।
নিহত রোহিতের বড় ভাই মাজহারুল হাসান রাজু জানান, তাদের বাসা দক্ষিণ যাত্রাবাড়ী শহীদ ফারুক রোডে। তার বাবার নাম অহিদুর রহমান। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে সবার ছোট রোহিত গুলিস্তানে একটি গেঞ্জির দোকানের চাকরি করতো। জুম্মার নামাজের পর বন্ধু মারজানের মোটরসাইকেল করে ঘুরতে বের হয়েছিল দু’জন। এরপর এই দুর্ঘটনার খবর শুনতে পান।
আহত মারজানের ভগ্নিপতি সাজ্জাদ হোসেন সাংবাদিকদেরকে জানান, মারজান পরিবারের সাথে শহীদ ফারুক রোডে থাকে। ফার্মগেটের পলিটেকনিকে আর্কিটেকচারের প্রথম বর্ষের ছাত্র সে। পাশাপাশি ব্যবসা করতোও।
ওসি মো. বাচ্চু মিয়া আরও জানান, নিহত রোহিতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। আহত মারজানকে জরুরি বিভাগে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তার অবস্থাও গুরুতর। নিহত ও আহত কারও পূর্ণ ঠিকানা এখনও পাওয়া যায়নি। শুধু তাদের নাম জানা গেছে। হতাহতদের বিস্তারিত পরিচয় জানার চেষ্টা চলছে। কিভাবে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে সে বিষয়ে কোনো কিছু জানা যায়নি। তবে, বিষয়টি সংশ্লিস্ট থানা পুলিশকে অবগত করা হয়েছে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ