,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

 যত্রতত্র দাঁতের ভুয়া চিকিৎসকের চেম্বার

শিবব্রত,ফেনীঃপরশুরাম উপজেলায় যত্রতত্র কিছু ভুয়া দাঁতের চিকিৎসক চেম্বার খুলে ব্যবস্থা পত্র লিখে চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন  বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। চিকিৎসা শাস্ত্রের ওপর সরকার অনুমোদিত কোন ডিগ্রি তাদের না থাকলে ও সুদৃশ্য চেম্বারে ওরা নিয়মিত রোগী দেখাসহ দাঁতের কাজ করছেন বলে অভিযোগে জানা গেছে। হাতুড়ে  এসব চিকিৎসকের চিকিৎসায় অনেক ক্ষেত্রেই বিপাকে পড়েছেন  সাধারণ মানুষ। মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন অনুযায়ী সরকার নিবন্ধিত চিকিৎসক ছাড়া এভাবে চেম্বার খুলে রোগী দেখা  ও চিকিৎসা  প্রদান আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।
অনুসন্ধানে জানা যায়, পরশুরামে হাসপাতাল রোড , রেলক্রসিং ও শুঁটকি বাজার সহ প্রায় ১০ টি ডেন্টাল চেম্বার রয়েছে। অধিকাংশ চেম্বারে সরকার অনুমোদিত ডেন্টাল চিকিৎসক বসেননা। এসব চেম্বারে রোগী দেখেন ভুয়া ডিগ্রি ধারী লোকেরা।তারা সাইনবোর্ড, প্রেসক্রিপশন প্যাড, ভিজিটিং কার্ড ইত্যাদিতে  নামের আগে  “ডাক্তার’ও বিভিন্ন ভুয়া ডিগ্রী ব্যবহার করে রোগীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এমনকি প্রতিষ্ঠিত চিকিৎসকের পদবী ব্যবহার করে চিকিৎসা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে, পরশুরামের এক বিশিষ্ট দন্ত চিকিৎসক জানান, সরকারী অনুমোদন না থাকলে ও এ ধরণের চিকিৎসকরা দেশের আনাচে কানাচে চিকিৎসা-বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে। কোন রকম একটা অভিজ্ঞতা অর্জন করে অনেকে নামের আগে ভুয়া ডিগ্রী  লাগিয়ে দাঁত ও মাড়ির রোগীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপত্র দিয়ে আসছে।
পরশুরাম  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা  জানান, উর্ধ্বতন  কর্তৃপক্ষের নির্দেশ  ছাড়া আমরা কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারিনা। নির্দেশনা পেলে আইনগত ব্যবস্থা  নেওয়া হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসমিন আক্তার জানান, স্বাস্থ্য সংক্রান্ত চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে। কেউ যদি নামের আগে ভুয়া ডিগ্রী লাগিয়ে রোগীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে ভুল চিকিৎসা প্রদান করে তাকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি যোগ্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ