,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

ছাতকে ভুয়া ইউএনও’র পরিচয়ে ব্যবসায়ীর ৩৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক

সেলিম মাহবুব,ছাতকঃ ছাতকে ইউএনও পরিচয় দিয়ে দু’ ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ৩৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে উপজেলার জাউয়া বাজারে। ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীরা জানান, জাউয়া ইউপি সচিব কায়েছ মাহমুদের ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করে নিজেকে ইউএনও পরিচয় দিয়ে জাউয়া বাজারস্থ মিষ্টির দোকান ও বেকারী মালিকদের নাম ও মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করে তাকে দিতে বলেন। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে ইউপি সচিব কায়েছ মাহমুদ গ্রাম পুলিশ সুহেল মিয়াকে বাজারে পাঠান নাম ও মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করতে। গ্রাম পুলিশ সুহেল মিয়া বাজারে গিয়ে বাজারের মিষ্টি দোকান, বেকারী মালিকদের সাথে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন দিয়ে সরাসরি ইউএনও পরিচয়দানকারী ব্যক্তির সাথে আলাপ করিয়ে দেন। এসময় ইউএনও পরিচায়দানকারী ওই ব্যক্তি দোকান মালিকদের নাম ও মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করে নেয়। এ ঘটনার কিছুক্ষণ পর ব্যবসায়ীদর মোবাইল ফোনে কল করে নিজেকে ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ ২ থেকে ৩ লক্ষ টাকা পর্যন্ত জরিমানা করার ভয়-ভীতি প্রদর্শন করে। মোবাইল কোর্টের ঝামেলা এড়াতে বাজারের মিতালী মিষ্টি ঘরের মালিককে ৩০ হাজার এবং লিমা সিমা মিষ্টি ঘরের মালিককে ৫ হাজার টাকা বিকাশ একাউন্টে পাঠানোর জন্য নির্দেশ দেয় ইউএনও পরিচয়দানকারী ব্যক্তি। এসময় মিতালী মিষ্টি ঘরের মালিক দীপক রঞ্জন তালুকদার ৩০ হাজার এবং সিমা মিষ্টি ঘরের মালিক মফিজ মিয়া ৫ হাজার টাকা ওই ব্যক্তির পাঠানো মোবাইল বিকাশ ০১৬১০৪৭৪০২৯ নাম্বারে পাঠিয়ে দেয়। পরবর্তিতে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করে ওই ব্যবসায়ীরা জানতে পারেন ভুয়া ইউএনর মাধ্যমে তারা প্রতারিত হয়েছেন। এসব প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবী জানিয়েছেন জাউয়া বাজার ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির নেতৃবৃন্দ।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ