,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

উখিয়া টেকনাফ থেকে আবার ও ভাসান চরে নিয়ে যাচ্ছে ক্যাম্প

নুরুল আলম, টেকনাফঃ আগামী রোববার ১৪ ফেব্রুয়ারী ও সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২ দিনে আরো ৩ হাজার শরনার্থী নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফ থেকে ভাসানচরে এটি হবে চতুর্থ দফায় রোহিঙ্গা শরনার্থী স্থানান্তর। সংশ্লিষ্ট সুত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। ভাসানচরে নিয়ে যেতে শুক্রবার ১২ ফেব্রুয়ারী ১৫টি মিনিবাস ও মাল বহনকারী ৮টি ডাম্পার ট্রাকের মাধ্যমে শরনার্থী স্হান থেকে প্রায় ৫০০ অনুপ্রবেশ কারী শরনার্থীকে নিয়ে আসা হয়েছে ট্রানজিট পয়েন্ট উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠে। শুক্রবার যেসব শরনার্থী শিবিরের অস্থায়ী স্হান থেকে ভাসানচরে নেওয়ার জন্য ট্রানজিট পয়েন্টে আনা হয়েছে, সেগুলো হলো-বালুখালী ক্যাম্প নম্বর-৮ পূর্ব, ৯, ১০, ১১, ১২, ও ১৮ নম্বর স্হান ।থেকে শরনার্থীদের এই দলটি কাল রোববার ভাসানচরের উদ্দ্যেশে বাসে করে রওনা দিয়ে চট্টগ্রাম যাবে। সেখান থেকে সমুদ্র পথে জাহাজে করে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হবে। পরশু সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী কুতুপালং-১ ইস্ট, ২ ইস্ট, এবং ২ ওয়েস্ট ক্যাম্প থেকে আরও প্রায় এক হাজার রোহিঙ্গা শরনার্থীর পৃথক একটি দল ভাসানচরে রওনা দেবে। তাদেরকে আজ শনিবার বিকেলে ক্যাম্প থেকে ট্রানজিট পয়েন্ট উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠে আনা হবে। ক্যাম্পের একজন মাঝি জানিয়েছেন,অনুপ্রবেশ কারীরা ভাসানচরে যেতে দিন দিন আগ্রহী হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যে স্বেচ্ছায় ক্যাম্প কর্মকর্তার নিকট ভাসানচরে যেতে আগ্রহীদের তালিকা যারা জমা দিয়েছিল, তারা কাল ও পরশু ভাসানচরে যাচ্ছে। চতুর্থ দফায় দুইদিনে রোহিঙ্গাদের বিশাল বহর স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যাওয়ার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দল ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা তাদের নিরাপত্তা ও প্রয়োজনীয় সহায়তা ব্যবস্তা দিচ্ছে। এর আগে তিন দফায় প্রায় ১১ হাজার অনুপ্রবেশ কারী শরনার্থী শিবির কে ভাসানচরে পাঠানো হয়েছে। আবার সমুদ্র পথে অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যেতে নাপেরে ৩০৬ জন রোহিঙ্গা শরনার্থীকে সমুদ্র থেকে উদ্ধার করে ভাসানচরে পাঠানো হয়েছে। উখিয়া-টেকনাফে আশ্রিত ৩৪ টি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর স্হান থেকে কমপক্ষে এক লক্ষ অনুপ্রবেশ কারী শরনার্থী শিবির কে নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচরে স্থানান্তর করার টার্গেট রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। সুত্রমতে, আগামী ফেব্রুয়ারীর শেষ সপ্তাহে ভাসানচরে যেতে আগ্রহী শরনার্থীদের আরো একটি দল উখিয়া-টেকনাফ এর শরনার্থী স্হান থেকে পঞ্চম দফায় ভাসানচরে স্থানান্তরের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা শরনার্থীদের প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার প্রয়োজনে নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার অধীনে পৃথক একটি থানা প্রতিষ্ঠা করেছে ভাসানচরে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ