,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

তারাকান্দায় নানা অভিযোগে অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম ও সচিব হেলাল উদ্দিন

স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহের তারাকান্দা উপজেলার বালিখা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম ও সচিব হেলাল উদ্দিন এর বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। বিগত চার বছরে এলজিএসপি,টি আর,কাবিখা, কাবিটা, অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্হান কর্মসূচি (ইজিপিপি) সহ বিভিন্ন প্রকল্পে দূর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়ন না করে নাম মাত্র কাজ করে,সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বিল আত্মসাৎ এর অভিযোগ তুলেছেন ইউপি সদস্যরা । তারই ধারাবাহিকতায় চলতি ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের অতি দরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্হান কর্মসূচি (১ম পর্যায় ইজিপিপি) প্রকল্পে সরকারী তালিকা অনুযায়ী চারশত বিরাশী জন শ্রমিক দেখালেও, মাঠে কাজ করেছেন মাত্র একশত ষাট জন শ্রমিক, যে কারনে সঠিকভাবে প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি, এমন অভিযোগ করেছেন ইউপি সদস্য সহ প্রত্যক্ষদর্শী স্হানীয় এলাকাবাসী । সরেজমিনে খুঁজ নিয়ে জানা গেছে,ইউনিয়নের যেসব ওয়ার্ডে কাজ করা হয়েছে, সেসব ওয়ার্ডে সরকারি ভাবে, প্রকল্পের কাজের ধরন,মূল্য, মেয়াদকাল, শ্রমিক সংখ্যা সহ সাইনবোর্ড ডিসপ্লে করার কথা থাকলেও,আইন অমান্য করে কোন সাইনবোর্ড ডিসপ্লে করেননি কথিত ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম ও সচিব হেলাল সহ সিন্ডিকেট সদস্যরা। এদিকে চারশত বিরাশী জন শ্রমিক তালিকাতে থাকলেও, মাঠে কাজ করেছেন একশত ষাট জন শ্রমিক, তবুও কিভাবে অসাধু সিন্ডিকেটের সহযোগীতায় ভূয়া একাউন্টের মাধ্যমে পূর্নাঙ্গ বিল পাস করে,সেই টাকা আত্মসাৎ করেন কথিত ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম? এমন প্রশ্ন জনমনে! শুধু তাই নয় ভূয়া একাউন্টের মাধ্যমে অর্থ আত্নসাৎ এর ঘটনায় টাকা ভাগাভাগি নিয়ে কয়েকজন ইউপি সদস্যদের মধ্যে ৩০ শে জানুয়ারি বিকেলে ইউনিয়ন পরিষদে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে যা তদন্ত করলে প্রমাণ মিলবে । অভিযোগে আরও প্রকাশ, ইউপি সচিব হেলাল উদ্দিন দীর্ঘ দিন একই ইউনিয়নে থাকার কারণে বিভিন্ন দূর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে। জন্মনিবন্ধন,পরিচয় পত্র, বয়স্ক,বিধবা, প্রতিবন্ধী কার্ড সহ বিভিন্ন সেবা নিতে গুন হয় টাকা। ইউপি সচিব হেলাল উদ্দিন টাকা পেলেই কাজ হয়ে যায় দ্রুত, আর টাকা না পেলেই হয়রানির সীমা নেই, দিনের পর দিন ঘুরেও পাওয়া যায় না সেবা! বিভিন্ন অজুহাতে দায়িত্ব এড়িয়ে চলেন ইউপি সচিব হেলাল! এদিকে এ বিষয়ে তারাকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন ইউপি সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক, মোঃ আবুল হাসিম সহ জসিমউদ্দীনরা। এসব বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম ও সচিব হেলাল অভিযোগ অস্বীকার করেন তবে অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল বলেন অচিরেই তদন্তের প্রতিবেদন দেওয়া হবে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ