,


শিরোনাম:
«» ক্ষতিগ্রস্ত ৩৩ দোকান মালিকরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর অনুদান «» যৌতুক না পেয়ে নির্যাতনের অভিযোগ, গৃহবধূকে মারধর «» তুরাগে ১৫০টি দোকানের বিদ্যুৎ বিল মাসে ৭০০ টাকা দেখিয়ে প্রায় ৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎকারী নামধারী নেতা গ্রেফতার। «» তুরাগে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম শুরু «» তুরাগে ২ বছরের শিশু ধর্ষণ : ধর্ষক মামুন আটক। «» ইদ-ই-মিলাদুন্নবি উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বপ্নালোড়ন বাংলাদেশ «» কক্সবাজার টেকনাফের এডভোকেট আব্দুর রহমান ইয়াবাসহ তুরাগে পুলিশের জালে ধরা। «» জিএম কাদেরের ফোন ছিনতাই করে ২৩ হাজার টাকা বিক্রি, বসুন্ধরা মার্কেট থেকে ৮ দিন পর খোলা ফোন উদ্ধার। «» শেরে-বাংলা নগরে প্রশাসনকে মাসোহারা দিয়েই চলছে সরকারি দপ্তরের গাড়ির তেল চুরি «» উত্তরায় কিশোর গ্যাংয়ের ছিনতাইয়ের কবলে পথচারীরা।

গলাচিপায় কাঠ মিস্ত্রির অসহায় জীবন যাপন বঙ্গবন্ধুর কাজ করেও ভাগ্য খোলে নি

মোঃমাজহারুল ইসলাম মলি: পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলায় প্রবীণ কাঠ মিস্ত্রি পরিবার নিয়ে অসহায় জীবন যাপন। আচল অবস্থায়ও নিজের পরিবারের খরচ যোগাতে চুক্তি ভিত্তিক আসবাপত্রের কাজ করে বলে জানা গেছে। পরিবার ও একান্ত সাক্ষাতকার সূত্রে জনা যায় উপজেলার গোলখালী ইউনিয়নের ৫ ওয়ার্ড কালীরচর গ্রামের মৃত রাম চরন মিস্ত্রি এর ছেলে লক্ষ্মণ চন্দ্র মিস্ত্রি ঢাকার ফার্নিচার ও বাসাবাড়ির কাঠের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। তাঁর হাতের নিখুঁত কারুকাজের সৌন্দর্য দেখে সহজেই সকলের মন আকৃষ্ট করত। শৈল্পিক কাজের সুবাদে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নামীদামী লোকের বাড়ির আসবাবপত্র তৈরী করে দিয়েছেন। আর এই সূত্রে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠে ঢাকার অধক্ষ মোঃবাদশা খায়রুল সাহেবের সাথে। তার সহোযোগিতায় শেখ পরিবারের কাজ করার সুযোগ হয়েছিল। শেখ কামাল সাহেবের ঠিকেদারি প্রতিষ্ঠানে একাধিক সাইড এর কাঠের কাজ সমাপ্ত করেছেন কিন্তু সমাপ্ত করতে পারেনি ঐ পরিবারের পারিবারিক আসবারপত্রের কাজ। ১৯৭৫ এর ১৫ ই আগষ্টে ঘাতকদের নীল নকশার কারনে তার স্বপ্ন পুরান হতে দেয়নি ঘাতকরা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তার নির্মিত ছোপায় না বসাতে পেরে আক্ষেপ প্রকাশ করেন। কানে ভাড় সোনা ৮৫ বছর বয়সী লক্ষ্মণ চন্দ্র মিস্ত্রি আবেগ জড়িত কন্ঠে বলেন ” প্রিন্সিপাল বাদশা খায়রুল সাহেব শেখ মুজিবের (রাজার) ছোপা বানাইতে নিয়া যায়। চৌদ্দ-পনের দিন ধানমন্ডি তার (রাজার) বাড়িতে যাইয়া কাজ করছি। বিশ্বোইত বার (বৃহস্পতি বার) রাস পূর্নিমার দিন গুলির শব্দ শুনি। ভয়তে আর ঐ বাড়িতে কাজে যাইতে সাহস পাইনাই। এহন আমার খবর কে রাহে, রাজা (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান) বাইছা থাকলে আমরা ভাল থাকতাম”

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ