,


শিরোনাম:
«» রাজধানীর তুরাগে ডোবা থেকে অজ্ঞাত তরুণীর মৃতদেহ উদ্ধার «» উত্তরায় মা দিবস উপলক্ষে ৩০জন রত্নগর্ভা ‘মা’কে সম্মাননা «» উত্তরায় শিনশিন জাপান হাসপাতালে রোগীকে আটক রেখে নয় লাখ টাকা বিল। «» আবদুল আউয়াল ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের পক্ষ থেকে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ «» তুরাগ বাসীসহ দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কৃষকলীগের সভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন «» চাঁপাইনবাবগঞ্জে সার ডিলারদের অনিয়মে জিম্মি কৃষক ও চাষিরা «» ঢাকা-আশুলিয়া মহাসড়কে গাড়ির চাপায় সাবেক পুলিশ সদস্য নিহত «» চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান এমপি হাবিব হাসান। «» মশার অসহ্যকর যন্ত্রণায় তিক্ত তুরাগবাসী, দায়িত্বশীলরা বলছেন অসহায়ত্বের কথা «» তুরাগে মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করাকে কেন্দ্র করে পুলিশের উপর বস্তিবাসীর হামলা। 

৭২ঘণ্টা পর মরদেহ ফেরত দিল ভারতীয় পুলিশ।

মোঃ রশিদুল ইসলাম রিপনঃ লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়ন সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে নিহত বাংলাদেশী জাহিদুল ইসলামের (২২) মরদেহ ফেরত দিয়েছে দেশটির পুলিশ। গতকাল শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে ঘটনার ৭২ঘণ্টা পর পাটগ্রাম থানা পুলিশের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করে ভারতীয় মেখলিগঞ্জ থানা পুলিশ।

নিহত জাহিদুল ইসলাম লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের ইসলামপুর এলাকার দুলাল হোসেনের পুত্র। গত বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) ভোরে পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর সীমান্তের ৮৫২নম্বর মেইন পিলার এলাকায় বিএসএফের গুলিতে নিহত হন জাহিদুল ইসলাম। এরপর বিএসএফ ও মেখলিগঞ্জ থানা পুলিশ নিহতের মরদেহ নিয়ে যায়। এ ঘটনায় বিজিবি-বিএসএফ দফায় দফায় পতাকা বৈঠক করে।

গতকাল শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার শ্রীরামপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর সীমান্তের ৮৫৩নম্বর মেইন পিলার এলাকায় বিজিবি-বিএসএফের কোম্পানি কমান্ডারসহ সদস্যদের উপস্থিতিতে ভারতীয় কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ থানার ওসি মৃত্যুঞ্জয় রায় নিহত জাহিদুল ইসলামের মরদেহ ফেরত দেন পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ সুমন কুমার মোহন্তের কাছে।

এর আগে গত বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) ভোরে ওই সীমান্তের ৮৫২নম্বর মেইন পিলার এলাকা দিয়ে ভারতীয় গরু ব্যবসায়ীদের সহায়তায় বাংলাদেশী গরু পারাপারকারী একটি দল গরু আনতে গেলে ভারতীয় কোচবিহার-১৪০ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের রতনপুর বিএসএফ ক্যাম্পের একটি টহল দলের গুলিতে ঘটনাস্থলেই নিহত হয় জাহিদুল ইসলাম। এ সময় গুলিতে ভারতীয় ও বাংলাদেশী আরও ১জন করে ২জন গরু পারাপারকারী সদস্য আহত হন।

রংপুর-৬১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের শমসেরনগর কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আজহারুল ইসলাম ভারতীয় বিএসএফের গুলিতে নিহত জাহিদুল ইসলামের মরদেহ ফেরত দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় বিএসএফকে কড়া প্রতিবাদপত্র দেয়া হয়েছে বলেও সাংবাদিকদের জানান তিনি।

পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ সুমন কুমার মোহন্ত সাংবাদিকদের বলেন, দুপুরে ভারতীয় বিএসএফ ও বিজিবি সদস্যদের উপস্থিতিতে ভারতে ময়নাতদন্ত শেষে জাহিদুল ইসলামের মরদেহ মেখলিগঞ্জ থানার ওসি মৃত্যুঞ্জয় রায়ের কাছ থেকে আমি বুঝে নিয়ে তার বাবা দুলাল হোসেনের কাছে হস্তান্তর করেছি।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ