,


শিরোনাম:
«» তুরাগে গৃহবধু হত্যার অভিযোগে স্বামীর বন্ধু গ্রেফতার «» ভাড়া বাসায় অবস্থান করে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতী করতো তারা’ «» ঈশ্বরদীতে ২০০ লিটার মদসহ গ্রেফতার ১ «» ঈশ্বরদীতে নবজাতক হত্যার অভিযোগ সাবেক স্বাস্থ্যকর্মীর আকলিমার বিরুদ্ধে «» সাংবাদিকতার দায় একমাত্র জনসাধারণের কাছে:তিতুমীর «» ঈশ্বরদীতে প্রণোদনার সার-বীজ প্রদানে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ প্রকৃত কৃষকদের «» ঈশ্বরদীতে বালু খেকোদের কবলে বিলিন হাজার হেক্টর ফসলি জমি, দিশেহারা কৃষক «» ঠাকুরগাঁওয়ে বিশ্ব মৃত্তিকা দিবস পালিত র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ সাবেক এমপি ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদকের বাসভবনে হামলা «» চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষকলীগের অনুষ্ঠানে সংঘর্ষে যুবলীগ নেতা মিনহাজ আহত

ভোলার শুন্য হয়ে যাচ্ছে খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করা

এ .এইচ. রিপন ভোলা প্রতিনিধিঃ শীতের সময় দিনে গরম সন্ধ্যা হলেই প্রচুর ঠান্ডা সকালে শিশির ভেজা পথ যা শীতের কন কন আগমনের বার্তা জানান দিচ্ছে। এরই মধ্যে ভোলার চরফ্যাসন উপজেলায় খেজুর গাছে আগাম খেজুরের রস সংগ্রহের প্রস্তুতি চলছে।

যারা খেজুর গাছ থেকে বিশেষ ভাবে রস সংগ্রহ করতে পারদর্শী তাদেরকে গাছি বলা হয়। আগাম রস পাবার আশায় গাছিরা গাছের পরিচর্যা শুরু করেছেন। শীতের মৌসুম শুরু হতে না হতেই খেজুরের রস আহরনের জন্য গাছিরা খেজুর গাছ প্রস্তুত করতে শুরু করেছেন। গাছিরা হাতে দা নিয়ে কোমরে রসি বেঁধে নিপুন হাতে গাছ চাছেলা করছে। কয়েকদিন পরই গাছিদের খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহের ধুম পড়ে যাবে।
শীতের মৌসুম আসলে দেশের দক্ষিন অঞ্চলে সর্বত্র খেজুরের রস সংগ্রহের ধুম পরে জায়। গাছ থেকে রস সংগ্রহ করে গাছিরা। কয়েক দিন পরেই খেজুরের গুড় তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করবেন গাছিরা। তাদের মুখে ফুটে উঠবে হাঁসি। শীতের মৌসুম মানেই খেজুর গুড়ের মৌ মৌ গন্ধে ভরে ওঠে পুরো মহল্লা। শীতের সকালে খেজুর রসের তৃপ্তি অন্যরকম খেজুর রসের ক্ষীর পায়েসের মজাই নাই বা বললাম। প্রতিদিন গ্রামের কোন না কোন বাড়িতে খেজুর রসের খবারের আয়োজন চলে। খেজুরের শুধু রসই নয় গুড় ছাড়া জমেই না। এক সময় ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলায় গুড় ছিল বিখ্যাত। এ সকল এলাকার খেজুর রসের গুড় চাহিদা ছিল ব্যাপক। সে সময় ব্যবসায়ীরা এলাকা থেকে গুড় সংগ্রহ করে গরুর গাড়িতে করে দেশের বিভিন্ন জায়গার উদ্দেশ্যে রওনা দিতো। কালের বিবর্তনে এক সময়ের ঐতিহ্য আজ বিলুপ্তের পথে, কারণ আগের মত খেজুর গাছ চোখে পরেনা । কোন চাষি জমিতে আলাদা করে খেজুর গাছের চাষ করেনা। শুধু রাস্তার পাশে কিংবা জমির আইলে যে খেজুর গাছ দেখা যায় তাই এখন শেষ সম্বল রস সংগ্রহের জন্য। তাছাড়া এক কেজি গুড় তৈরি করতে খরচ (৬০-৬৫) টাকা, আর বিক্রি করতে হয় (৮০-৯০) টাকা বড় জোর ১০০ টাকার বেশি নয়। যে কারণে চাষিরা গুড় বানাতে নিরুৎসাহিত হচ্ছে। চরফ্যাসন উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার গুলো ঘুরে দেখা যায় যে এখানে খেজুর গুড়ের বেশ চাহিদা রয়েছে। দক্ষিণ আইচা বাজারের এক জন গুড় ব্যাবসায়ী বলেন, আগাম গাছ ছুললে গুড়ের ভালো দাম পাওয়া যাবে কিন্তু এখন আর আগের মত গাছি পাওয়া যাচ্ছেনা। গ্রামাঞ্চলে হাতে গনা কয়েকজন গাছি, যারা খেজুর গাছ কাটতে পারে। পরিশ্রমের তুলনাই লাভ কম, তাই নতুন করে কেউ আর খেজুর গাছ কাটতে চায়না। বন বিভাগের এক কর্মকর্তার সাথে আলাপ করলে তিনি নাম প্রকাশ না করা শর্তে জানান, গাছ গুলো অলাভজনক অরিক্ষিৎ হওয়ায় নতুন করে রোপন করে না এবং ইটভাটায় জালানী হিসাবে চাহিদা থাকায় গাছ গুলো কর্তনের ফলে বিলুপ্তির পথে খেজুর গাছ ও খেজুরের রস। ওই কর্মকর্তা আরও জানান সরকারি রাস্তার পাশে তাল গাছ ও খেজুর গাছ রোপন করলে খেজুর রসের জৌলুশ ফিরে আসতে পারে।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
ঘোষনাঃ